কমিয়ে আনুন প্লাস্টিকের ব্যবহার

আমরা সবাই পরিবেশকে কেন্দ্র করে বেঁচে থাকি এবং নানাভাবে পরিবেশ দূষিত করি। বস্তুত আমরা প্রতিনিয়ত পরিবেশ দূষণ করে চলছি, আর ধ্বংস করছি প্রকৃতির প্রাণ বৈচিত্র্য। সাম্প্রতিককালে পরিবেশ দূষণের একটি প্রধান কারণ হল প্লাস্টিক বর্জ্য। এক টুকরো প্লাস্টিক মাটিতে মিশে যেতে সময় লাগে ৫০০ বছর!

আমরা প্রতিনিয়ত প্লাস্টিক ব্যবহার করছি । প্লাস্টিক দ্রব্যের ব্যবহার আমাদের দৈনন্দিন কাজে এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে, বেশিরভাগ মানুষের কাছেই প্লাস্টিক দ্রব্য ছাড়া জীবনযাপন প্রায় অসম্ভব মনে হতে পারে।

আমরা প্রতিদিন অতি ন্যূনতম কাজেও প্লাস্টিক ব্যবহার করি এবং প্রয়োজন শেষে তা ফেলে দেই। আমাদের ব্যবহৃত এই প্লাস্টিক পদার্থগুলোই পর্যায়ক্রমে বর্জ্য আকারে পরিবেশ দূষণ করছে। তবে চাইলেই আমরা প্রতিদিনকার এই প্লাস্টিক ব্যবহার কমিয়ে আনতে পারি।

  • শপিং বা বাজার করতে যাওয়ার সময় নিজের ব্যাগ নিয়ে যান। যাতে দোকান থেকে প্লাস্টিকের ব্যাগ না নিতে হয়।
  • সব সময় ব্যাগে রিইউজেবল পানির বোতল রাখুন। যাতে বাইরে প্লাস্টিকের বোতলে পানি কিনে খেতে না হয়।
  • চা বা কফি পানের অভ্যাস থাকলে  অফিসে বা বেড়াতে যাওয়ার সময় নিজের কাপ সঙ্গে রাখুন। যাতে বার বার প্লাস্টিকের কাপে চা, কফি না খেতে হয়।
  • প্যাক করা খাবারের সঙ্গে অনেক জায়গায় প্লাস্টিকের কাটলারি, স্ট্র দেওয়া হয়। যতটা সম্ভব এগুলোর ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।
  • শুকনো খাবার বা রান্না করা খাবার প্লাস্টিকের কন্টেনারে না রেখে কাচের পাত্রে রাখুন।
  • লন্ড্রিতে কাপড় দেওয়ার সময়ে ও কাপড় নেবার সময়ে প্লাস্টিকের ব্যাগ ব্যবহার করবেন না।
  • প্লাস্টিকের প্যাকেটে বিক্রি হওয়া চিপস, বিস্কিট, চকলেট কেনা থেকে বিরত থাকুন। একদিকে যেমন এগুলো  স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর তেমনি পরিবেশের জন্যও ক্ষতিকর।

কিছুদিন এই উপায়গুলো দৈনন্দিন জীবনে প্রয়োগ করে দেখুন। নিজেই বুঝতে পারবেন  কতগুলো প্লাস্টিকের পণ্য ব্যবহার করা থেকে বিরত ছিলেন আপনি।  তাই নিজে প্লাস্টিক ব্যবহারে বিরত থাকার অভ্যাস গড়ে তুলুন নিজের পরিচিতজনদেরও উদ্বুদ্ধ করুন। মনে রাখবেন পরিবেশের সুস্থতা আপনার আমার সবার বেঁচে থাকার জন্য আবশ্যক।   

আরো পড়ুন: কালচে দাগ দুর হবে সহজেই